Header Ads


moving image by marquee html code

নিম্ন রক্তচাপে খেতে হবে যেসব খাবার

উচ্চ রক্তচাপের সমস্যার কথাই আমরা বেশি শুনি। কিন্তু উচ্চ রক্তচাপের মতো নিম্ন রক্তচাপও সমানভাবে ক্ষতিকর। এই সমস্যার প্রতিকার করা না গেলে মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে পাশাপাশি বৃক্ক ও হৃদপিণ্ডের সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি থাকে। উচ্চ রক্তচাপের বেশ কিছু খাবার খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিতে হয়। অন্যদিকে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা থেকে রেহাই পেতে কিছু খাবার নিয়মিত রাখতে হবে খাদ্যতালিকায়।
চলুন জেনে নেয়া যাক নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায় যে খাবারগুলো খুব উপকারী-
লবণ: উচ্চ রক্তচাপের শত্রু লবণ, নিম্ন রক্তচাপের সমাধানে দারুণ কার্যকর। খাওয়ার লবণে থাকে সোডিয়াম যা রক্তচাপ বৃদ্ধিতে সহায়ক। তবে অতিরিক্ত সোডিয়াম গ্রহণের ফলে আলসারের ঝুঁকি বাড়ে। তাছাড়া বৃক্কে পাথর এবং শরীরে পানি জমার সমস্যাও হতে পারে। তাই অতিরিক্ত লবণ খাওয়া উচিত নয়।
লেবু: পানিশূণ্যতা থেকে অনেক সময় রক্তচাপ হ্রাস পায়। এমন সমস্যায় লেবু দারুণ উপযোগী। লেবুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি রক্তসঞ্চালন প্রক্রিয়া স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।
কিশমিশ: বৃক্করসের কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। ফলে রক্তচাপের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে। এছাড়া কিশমিশে আছে ভিটামিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং সহজপাচ্য আঁশ। খালি পেটে কিশমিশ খেলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যায়।
পুদিনা: ভিটামিন ‘সি’, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম ও প্যান্টোথেনিক উপাদান। যা রক্তসঞ্চালন প্রক্রিয়া স্বাভাবিক রাখার সঙ্গে সঙ্গে মানসিক অবসাদও দূর করে। পুদিনা পাতা বেঁটে এতে মধু মিশিয়ে পান করুন।
দুধ: ও কাঠবাদাম: রাতে দুধে বাদাম ভিজিয়ে রাখুন। সকালে দুধে ভেজানো বাদাম খেলে তা নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা উপশমে সাহায্য করে। এই মিশ্রণও বৃক্করস নিঃসরণকারী গ্রন্থিগুলো সুস্থ রাখে।
তুলসী: তুলসী পাতায় রয়েছে প্রচুর ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান। ভিটামিন সি, পান্টোথেনিক অ্যাসিড, পটাসিয়াশ এবং ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ তুলসী নিম্ন রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক।
কফি: স্ট্রং কফি, হট চকোলেট, কমল পানীয়সহ যেকোনো ক্যাফেইন সমৃদ্ধ পানীয় দ্রুত ব্লাড প্রেসার বাড়াতে সাহায্য করে। হঠাৎ করে লো প্রেসার দেখা দিলে এক কাপ কফি খেতে পারেন। যারা অনেকদিন ধরে এ সমস্যায় ভুগছেন, তারা সকালে ভারী নাশতার পর এক কাপ স্ট্রং কফি খেতে পারেন।
আদা: উচ্চ এবং নিম্ন রক্তচাপ- দুই সমস্যায় আদা সমানভাবে উপকারী। এতে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভেষজ উপাদান। শোগোল এবং জিনজেরল উপাদান রক্তচাপের তারতম্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

No comments

Thanks you for comment

Powered by Blogger.