Header Ads


moving image by marquee html code

সোনারগাঁয়ে দুপক্ষের সংঘর্ষ, বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট, আহত-১২

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার মেঘনা নদীর আনন্দবাজার এলাকায় বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে গতকাল মঙ্গলবার সকালে দুপক্ষের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের টেটাবিদ্ধ সহ কমপক্ষে ১২ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনজনকে আটক করেছে। থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসীরা জানান, উপজেলার মেঘনা নদীর আনন্দবাজার এলাকায় বালু মহালের ইজারা নিয়ে সম্প্রতি খনন যন্ত্র (ড্রেজারের সাহায্যে) বালু উত্তোলনের চেষ্টা চালায় একটি চক্র। কিন্তু গ্রামবাসীদের আন্দোলনের কারনে পিছু হটে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে ইউপি সদস্য বাসেদ মিয়া, নবী হোসেন, আমির হোসেন, সিরাজ মিয়া সহ একদল বাহিনী কয়েকটি ড্রেজার নিয়ে বালু উত্তোলনের চেষ্টা চালায়। এ সময় আনন্দবাজার ও পাশ্ববর্তী নুনেরটেক এলাকার লোকজন একত্রিত হয়ে বালু উত্তোলনকারীদের প্রতিহত করতে গেলে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে বালু উত্তোলনকারী সমর্থক সফিকুল ইসলাম ও রুহুল আমিন আহত হয়।
পরে বালু উত্তোলনকারী ইউপি সদস্য বাসেদ মিয়া, নবী হোসেনের নেতৃত্বে ২০/২৫ জনের একদল বাহিনী রামদা, ছোড়া, টেটা, লাঠি, লোহার রড সহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য শাহাদাত হোসেন ও আওয়ামীলীগ কর্মী ফুল মিয়ার বাড়িতে হামলা চালিয়ে রনি মিয়া, শামীম মিয়া, সিরাজ মিয়া, মোতালেব মিয়া, আলী আকবর, কোহিনুর ইসলাম, আরিফা বেগম, দিপা আক্তারকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের টেটাবিদ্ধ সহ কমপক্ষে ১২ জন আহত হয়অ। এ সময় তাদের বাড়িঘরে ভাংচুর ও লুটপাট চালায়।
আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে টেটাবিদ্ধ সফিকুল ইসলাম ও রনির অবস্থা আশঙ্কাজনক। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ইউপি সদস্য আব্দুল বাসেদ ও আইয়ুব আলীকে আটকের কয়েক ঘন্টা পর ছেড়ে দেয়। ঘটনার পর থেকে এলাকার পরিস্থিতি থমথমে বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। খবর পেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) রুবায়েত হায়াত শিপলু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ-অঞ্চল) সাজিদুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

No comments

Thanks you for comment

Powered by Blogger.