Header Ads


moving image by marquee html code

ঢাকার সঙ্গে মতানৈক্য কমাতে আলোচনায় আগ্রহী মিয়ানমার

বাংলাদেশের সঙ্গে মতানৈক্যগুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধানে আগ্রহী মিয়ানমার। পাশাপাশি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও এগিয়ে নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে প্রতিবেশী দেশটি।
বাংলাদেশ সফররত মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা থাউং টুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠক করে এ কথা জানিয়েছেন। সোমবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
রোববার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আমন্ত্রণে তিনদিনের সফরে ঢাকায় আসেন থাউং টুন।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা বাংলাদেশে অবস্থানকারী রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে আলোচনা শুরুর প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে একমত পোষণ করেন। তিনি বলেন, ‘দুই দেশের মধ্যে মতানৈক্যের বিষয়ে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের জন্য আগ্রহী মিয়ানমার।’
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আবুল হাসান মাহমুদ আলীকে মিয়ানমারের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা থাউং টুন বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য এর আগেও দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করেছে।’ বৈঠকে তিনি বাংলাদেশের সঙ্গে আরও সম্পর্ক উন্নয়নে তার সরকারের ইচ্ছার বিষয়টি তুলে ধরেন। বৈঠকে থাউং টুন বলেন, ‘অর্থনৈতিক উন্নয়ন রাখাইন প্রদেশের সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে উত্তেজনা কমাতে সহায়তা করবে। সমস্যা সমাধানেও সহায়তা করবে।’
আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রতিবেশীদের সঙ্গে আস্থা ও উভয়পক্ষের জন্য লাভজনক এমন একটি সম্পর্ক তৈরি করতে আগ্রহী।’মতানৈক্য দূর করার জন্য মুক্ত আলোচনার ওপর জোর দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিবেশীর জন্য ক্ষতিকারক এমন কোনও কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশ ’জিরো টলারেন্স’মনোভাব পোষণ করে। প্রতিবেশীর জন্য হানিকর এমন কোনও কর্মকাণ্ড বাংলাদেশের মাটিতে হতে দেবে না সরকার।’
সীমান্ত অঞ্চলে নিরাপত্তা ব্যবস্থা স্বাভাবিক করার বিষয়ে বাংলাদেশ সবসময় সহায়তা দেবে বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এই বিষয়ে আস্থা বাড়ানোসহ উভয় দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এমন বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে উচ্চ পর্যায়ের সফরের গুরুত্বের বিষয়ে একমত হন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মিয়ানমারের নিরাপত্তা উপদেষ্টা।

No comments

Thanks you for comment

Powered by Blogger.