Header Ads


moving image by marquee html code

সদরঘাটে ৩৪ জনের মৃত্যুর জন্য দায়ী ময়ূর-২ এর মাস্টার, বলছে তদন্ত কমিটি


বুড়িগঙ্গার লঞ্চডুবিতে ৩৪ জনের মৃত্যুর জন্য ময়ূর-২ নামের লঞ্চটিকে দায়ী করে প্রতিবেদন দিয়েছে ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটি। কমিটি সদরঘাট থেকে খেয়াঘাট সরিয়ে নেওয়া এবং সদরঘাটে অলস লঞ্চ বসিয়ে না রাখাসহ ২০ দফা সুপারিশ করেছে।
তদন্ত কমিটি বলছে, মুন্সিগঞ্জ থেকে ঢাকার সদরঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসা মর্নিং বার্ডকে ময়ুর–২ প্রথমে ধাক্কা দিলে লঞ্চটি আড়াআড়ি হয়ে যায়। এরপর লঞ্চটির ওপর ময়ূর-২ উঠিয়ে দেওয়া হয়। কমিটি দুর্ঘটনার জন্য ময়ূর–২ লঞ্চের মাস্টার (চালক) ও সে সময় লঞ্চ চালানোর সঙ্গে যুক্ত অন্যদের প্রধানত দায়ী করেছে।
বুড়িগঙ্গার লঞ্চডুবির ঘটনায় নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) তদন্ত কমিটি গঠন করে। তবে ওই ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের নাম এবং দুর্ঘটনার কারণ এখনই প্রকাশ করা হচ্ছে না। পুলিশের তদন্তের জন্য এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয়।
আজ মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় মামলা হয়েছে। ওই মামলার প্রতিবেদন প্রকাশের কথা রয়েছে ১৭ আগস্ট। পুলিশের দায়ের করা মামলার তদন্তের স্বার্থে দুর্ঘটনার কারণ এবং কারা দায়ী, তা প্রকাশ করা যাচ্ছে না।
বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক প্রথম আলোকে বলেন, বুড়িগঙ্গায় মর্নিং বার্ড লঞ্চ ডুবিয়ে দিয়ে ৩৪ জনের মৃত্যুর জন্য দায়ী ময়ূর-২ নামের লঞ্চটি। লঞ্চটির মাস্টার আবুল বাশারসহ অন্যরা। পুলিশের তদন্ত কার্যক্রমে যাতে কোনো ধরনের বিঘ্ন না ঘটে, সে জন্য লঞ্চ দুর্ঘটনার কারণ এবং যাঁদের নাম উঠে এসেছে, তা প্রকাশ করা হচ্ছে না।

No comments

Thanks you for comment

Powered by Blogger.